Home > Beach Resort, General, Travelogue, Weekend Tour from Kolkata (Calcutta) > Frazerganj, Bakkhali & Henry’s Island ~ Beach by the Mangrove

Frazerganj, Bakkhali & Henry’s Island ~ Beach by the Mangrove

Exactly 100 years ago, Lt-Gov. of Bengal Andrew Frazer fell in love with a beach at one end of the Sunderbans. He was so drawn to that stretch of sand that he built a bungalow at Narayanitala, the nearest village.

Bakkhali Beach

Bakkhali Beach

The bungalow by the sea, surrounded by coconut groves, became a talking point among the Englishmen in Calcutta. Frazer, however, could not fulfil his dream of converting Narayanitala, later rechristened Frazerganj, into a health and beach resort. The bungalow, too, was swallowed by the advancing waters. Today, apart from the name, nothing remains of Frazerganj’s colonial past. However, don’t be disheartened, for the beach of Frazerganj, along with those of nearby Henry’s Island and Bakkhali are enchanting enough for a perfect weekend and more.

Located about 130 km from Kolkata, Bakkhali, Frazerganj & Henry’s Island is well connected by road. The highlight of the 5 hours bus journey is the crossing of the Hatania – Doania River. Bus and other vehicles are ferried by a vessel across the narrow but swift flowing river.

BAKKHALI

Sunrise, Bakkhali Beach

Sunrise, Bakkhali Beach

Bakkhali beach is one of the few beaches in India, which offers a spectacular sunrise and sunset. The sun rises and sets along the edge of the sea turning both the water and sand into a bright shade of crimson. Bakkhali is the most popular of the three resorts and have a number of hotels, including the West Bengal Government Tourist Lodge.

The beach of Bakkhali is safe but is not ideal for swimming as the water is very shallow. There are nearby fishing villages and fresh fishes are sold straight out of the fisher’s man net. There is nothing much to do in Bakkhali expect laze in the beach.

In the evening tea stall lets out plastic chairs @ Rs5 per hour and one can sit for hours munching on endless plates of Bhelpuri, Jhalmuri, Pokaros gulping it down with cups of tea.

When it comes to food Bakkhali is a favourite hunt for the fish loving Bengali tourist. Promfret, Bethki, Ilish, Pabda along with prawns and crabs are available at a throw away price at the roadside eateries. These eateries also cooks the freshly caught fish purshased from the sea beach. Do try out the fish and sea food at the Sagar Kanya, a small eatery on the road connecting Bakkhali Bus – stand to the beach.

Fishing Activity, Bakkhali Beach

Fishing Activity, Bakkhali Beach

Bakkhali also houses a Deer & Crocodile Farm. It also doubles up as a crocodile breading centre with crocodiles of different ages kept in different reservoirs. The deer are also kept in large enclosure.  The place is always infested with stray monkeys.

The Bakkhali also houses a small shrine dedicated to the gurdain deity of Sundarban Bonbibi. The easiest way to visit the temple is to take a walk along the beach with the sea on the right. Walk till the last lamppost and take a left turn into the Causarina forest leading up to the small shrine of Bonbibi.

FRAZERGANJ

Between Bakkhali and Frazerganj

Between Bakkhali and Frazerganj

Named after Lt-Gov. of Bengal Andrew Frazer, Frazerganj is about 3 km from Bakkhali. It is well connected from Bakkhali by bus and cycle van but the best option is to walk along the beach.

The beach between Bakkhali & Frazerganj is lonely and there are several fishing villages and you are quiet likely to come across fishermen mending their boats and nets, with their children playing in the beach.

The main landmark of the Frazerganj beach are the towering wind mills. Slightly of the Frazerganj beach are several dilapidated houses almost at the verge of collapsing, locals believe them as the remains of Frazer’s famed bunglow, but there are no concrete evidences to justify their belief.

Farazerganj is a hub of fishing activities and houses a large harbour. A short bumpy cycle van ride connects the beach to the harbour. Hundred of fishing boats, of all posible shape and size, line up the harbour. It is a place of fanatic activities with fishes being unloaded and packed with ice. Benfish also runs a auction centre at the harbour.

Boats being worshiped at Frazerganj Harbour

Boats being worshiped at Frazerganj Harbour

It is also a place where boats and nets are mended. Also you can come across new boats are being worshiped before making their maiden voyage.

Frazerganj harbour is also the lunch pad for trips to the uninhabited Jambu Dip, a small island approachable by a short but rough boat ride. Apart from a few temporary fishing huts Jambu Dip has no permanent settlement. It is an ideal place to enjoy the beach all to yourself, but be prepared for rough ride and wadding through knee deep water.

HENRY’S ISLAND

Mangrove Forest on Kiran Beach, Henry's Island

Mangrove Forest on Kiran Beach, Henry's Island

Located on the western edge of the Sundarban, Henry’s Island is fast developing into in West Bengal’s favorite Beach Resort. Named after a British surveyor, who survived the area about a century ago, Henrys Island is one of the numerous island that form the Ganga – Brahmaputra delta, the largest in the world. Crisscrossed by numerous rivers and rivulets Henry’s island offer an interesting mix of beach and mangrove forest. A place, where tourist can laze on the beach and spot wildlife simultaneously.

During 1980s the West Bengal Fisheries Department took the initiative of turning Henry’s Island into a tourist spot. Several ponds were dug and a forestation project taken up. It also led to the construction of the two resorts of Mangrove & Sundari.

Sundari Resort, Henry's Island

Sundari Resort, Henry's Island

A kilometer long narrow Bernard Road connects Henry’s Island to the Kolkata – Bakkhali Highway. The road meanders through agricultural fields and Henry’s Island is reached after crossing a creek, where the beautifully laid garden welcomes you to the Mangrove Resort. The meatled road gives away to a brick laid road and it meanders through dense forest to reach the Sundari Resort, from there a further 10 minute walk takes you to the Kiran Beach.

The Kiran Beach is a mixture of sand and clay and is lined with casuarinas plantation with occasional mangroves. You are quite likely to have the beach all to yourself along with a company of red crabs, turning the beach into a red carpet.

Sundari Tourist Complex houses a watch tower, providing a panoramic view of the surrounding and lucky few can even spot wildlife like deer and wild pigs. Complex also house several large ponds used for fish cultivation. Fresh fish and shrimps straight out the ponds are a must try for the visitors.

Links from my website:

List of my Blog entry on West Bengal

About these ads
  1. October 12, 2011 at 12:35 PM | #1

    Wants to to Henry Island for Office picnic. Please provide your contact number Immmediately

    • October 25, 2011 at 9:20 PM | #2

      Thanks Gopa for the enquiry. The Sundari & Mangrove Resort are booked from The State Fisheries Dept. Bikash Bhawan, 1st Floor, North Block, Salt Lake, Kolkata – 91.
      The Ph Nos are (033) 2337 6470, 2358 6832.

  2. Swadesh Dey
    December 24, 2011 at 5:46 PM | #3

    Could u plz tell me how is the Cottage of Benfish at Frazerganj?

  3. Indranil Dawn
    December 24, 2011 at 5:50 PM | #5

    We are going to visit Bakkhali in January. We want to stay at Fraser ganj. Please send me some photos of Sagarkanya and Sagari and the booking details of those.

    • December 24, 2011 at 11:25 PM | #6

      Dear Indranil, you have probably mistaken me as a travel agent. I am a travel writer and don’t have photos or contact information of either of the two hotels mentioned by you.

  4. Indranil Dawn
    December 26, 2011 at 6:30 PM | #7

    Thanks and but I did not think you as a travel agent. But you have given a reply of Mr Swadesh Dey as he asked for the same (the Cottage of Benfish at Frazerganj).
    Thanks again for your fast reply.

    • December 26, 2011 at 6:36 PM | #8

      Dear Indranil, please don’t mind, I may be a bit harsh on my reply. Actually you asked for pix and contacts of two hotels I don’t have them.
      Thanks for visiting my bolg and your comments.
      Please don’t mind and do keep in touch.

  5. Subrata Paul
    May 16, 2012 at 11:56 AM | #9

    I want to know abt how the hotels are in Henry Island are they good ,, which one is best ?

  6. May 16, 2012 at 12:51 PM | #10

    Dear Mr Paul, thanks for your coment. Henry’s Island has two resorts, Sundari & Mangrove. Sundari is located near the beach and is a better option. Both the resorts are owned by the Dept. of Fisheries, WB and booking is done from Bikash Bhavan, Salt Lake.

  7. August 27, 2012 at 10:22 PM | #11

    Great post !!

    We plan to visit there this week .

    Thanks for valuable information you have shared here !

    Best !
    Gobinda

  8. August 27, 2012 at 11:31 PM | #12

    Dear Mr Gobinda Roy, thanks for your comment. Wishing you a wonderful holiday. Do let me know your experience.

    Enjoy……

  9. Bibhas
    October 18, 2012 at 12:18 PM | #13

    Henry’s Island & Frazerganj are in the same place or different places ? How far is Bakkhali from Henry’s Island ?

    • October 18, 2012 at 9:15 PM | #14

      Dear Bibhas Frazerganj and Bakkhali are located 3km apart. Henry Island is approachable from both this places. You can combine your trip by spending one night in Hemry’s Island and one night in Frazerganj / Bakkhali.

  10. October 25, 2012 at 4:12 PM | #15

    Dear Rangan, I enjoy reading your travel blogs and photographs. Since you’re travelling and doing some research on the places you visit, could you throw some light on how the name “Harwood Point” (Lot No. 8 on the way to Sagar Island) was derived. I have been to this place many times, scoured the net for information on the naming of this place thus, but failed to find any. Best if you can find out and write a blog on this place. It would be very interesting. Thanks.

    • November 1, 2012 at 11:00 PM | #16

      Thanks for your comment Mr Chattopadhy, sorry I am not sure after whom the Harwood Point was named. I am consulting a few sources if i get to know the origin of the name I will get back to you.

  11. April 10, 2013 at 9:44 AM | #17

    Thanks for ones marvelous posting! I actually enjoyed reading it,
    you are a great author. I will be sure to bookmark your blog and definitely will come back sometime soon.
    I want to encourage that you continue your great work, have
    a nice day!

    • May 2, 2013 at 12:38 PM | #18

      Thanks, I upload a new post every Wednesday. Looking forward for more encouraging comments.

  12. Sudipto Gupta
    May 1, 2013 at 6:07 PM | #19

    Like others I also offer my thanks to Rangan for providing a clear picture of three spots and it was a real pleasure to read the article.

  13. Gautam Paul
    June 30, 2013 at 6:02 AM | #21

    I along with my family & nearby friends along with their family will be at Frazerganj on mid August & will stay at Benfish lodge sagarika. Please tell me about the place & how far it from Henri Island. we will stay for 3 days..

    • July 4, 2013 at 1:22 PM | #22

      Dear Mr Goutam Paul thanks for your comment. Henry’s Island is about half hour cycle van ride from Bakkhali. If you are taking your car it will take about 5 mins.

      Kiran beach of Henry’s Island cannot be reached by car or cycle van. The last 10 mins you have to walk.

  14. October 16, 2013 at 6:54 PM | #23

    Mr.Dutta, Thank you for your nice writing on Bakkhali, Henry Island &Frazerganj together with recent historical backgrounds of these places.You have summarized the important in formations to the persons who like to visit the places and the minute details are much helpful.If i visit the places with family in near future near future I think to stay at Bakkhali and at Fisheries dept accommodation will be safe,comfortable and economical.Thank you once again.

    • October 16, 2013 at 8:48 PM | #24

      Dear Mr Lahiri, thanks for you inspiring comment. You can definitely stay in the Guest House of Fisheries Dept. its good.

      Wish you a happy trip in advance.

  15. sanat
    January 2, 2014 at 11:49 PM | #25

    Sir i am recently visited Bakhali and nearest palce’s in recent past. I am sharing my experiences with you and other followers.
    অনেকদিন কোথাও বেড়াতে যাওয়া হয় নি। সারাদিন অফিস আর বাড়ি এই করতে করতেই সময় অতিবাহিত হচ্ছে। মনের অভ্যন্তরে বিতৃষ্না ধরে গেছে। তাই কয়েকদিন ধরেই মনের কোটোরে একটা বাসনা জাগছে কোথও বেড়িয়ে পরার জন্য। আমার বন্ধু সুব্রত ভারতীয় বায়ুসেনায় কর্মরত। কালিপূজার ছুটিতে ও ওর ফ্যামিলির সাথে বাড়িতে এসেছে। হঠাৎ ও বলল চল কোথাও ঘুরে আসি। আমিও সাথে সাথে রাজি হয়ে গেলাম। কিন্তু সপ্তাহান্তে দুদিনের ছুটিতে কোথায় যাওয়া যায়? অনেক আলোচনার পর ঠিক হল আমরা দুদিনের জন্য বকখালি ঘুরতে যাব। সেই মত আমরা ঠিক করলাম যে সামনের শনিবার বেড়িয়ে সোমবার ফিরে আসব। মাঝের দিন অর্থাৎ রবিবার পুরো দিনটা আমরা বকখালিতে কাটাবো। ইতিমধ্যে ঠান্ডা কিছুটা পরেছে। তাই কিছু ঠান্ডার পোশাকও নিতে হল। অন্যান্য জিনিষ পত্র গুছিয়ে নিয়ে আমরা শনিবারের জন্য অপেক্ষা করতে লাগলাম।
    অবশেষে এল শনিবার। ১৬ ই ডিসেম্বর ২০১৩ সকালে আমরা অর্থাৎ আমি ও আমার স্ত্রী প্রিয়াংকা এবং সুব্রত ও ওর স্ত্রী রূপা এবং ওর বাচ্চা তিন্নি রওনা হলাম। সকাল ৬ টার ট্রেন ধরে আমরা এলাম শিয়ালদহ স্টেশনে। সেখান থেকে বাস ধরে ধর্মতলা বাস টার্মিনালে। সকালবেলার কলকাতা তখন সবে কর্মচঞ্চল হয়ে উঠেছে। অতসকালেই বহু লোক তাদের কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়েছেন। গঙ্গার দিক থেকে বয়ে আসা স্নিগ্ধ ঠান্ডা বাতাষ সমস্ত মনকে স্নিগ্ধ করে তুলছে। এরই মধ্যে আমি কাউন্টার থেকে চারটি টিকিট কেটে আনলাম। আমাদের বাস অধীর অগ্রহে তার যাত্রী দের জন্য অপেক্ষা করছে। আমরা সমস্ত জিনিস পত্র নিয়ে বাসে চেপে বসলাম। সকাল ৮ টাই বাস ছাড়ল বকখালির উদ্দেশ্যে। আমাদের সকলের মনে তখন এক অজানা আনন্দের প্রতিফলন ছড়িয়ে পড়ছে। সুব্রতর মেয়ে তিন্নি চরম বিষ্ময়ের সাথে দৃশ্যাবলী দেখতে লাগল।
    বাস ক্রমে আলিপুর, বেহালা ছাড়িয়ে ডায়মন্ড হারবার রোড ধরে এগিয়ে চলতে লাগল। স্টেট বাসের গতি মাঝেমাঝেই শ্লথ হয়ে পড়ছিল। অপ্রশস্ত রাজ্য সড়ক এবং তার ভঙ্গুর স্বাস্থ্য বাসে গতিবেগকে যেমন রুদ্ধ করছিল তেমনি আমাদের যাত্রাপথকে করে তুলেছিল বিরক্তিময়। উপরি পাওনা হিসাবে জোকা, ডায়মন্ড হারবার, উস্তি, কুলপি ও কাকদ্বীপে রাস্তার উপর উঠে আসা বাজার এবং হকারের রাজত্ব বাস যাত্রাকে প্রায় অসম্ভব করে তুলছিল। তবে এই জায়গা গুলি বাদ দিলে বাকি গ্রাম বাংলার অপরূপ শোভা, সদ্য কেটে নেওয়া ধানের ক্ষেত এবং খেজুর গাছের রসের হাড়ি ইত্যাদির অপরূপ সৌন্দর্য চোখে পড়ল। এই ভাবে চলতে চলতে প্রায় তিন ঘন্টা কোথা দিয়ে কেটে গেল কিছু বুঝতে পারলাম না। মাঝে ১০ মিনিটের জন্য কাকদ্বীপে একবার বাস থামল। প্রকৃতির ডাক সম্পন্ন করা এবং খাবার দাবার নেবার জন্য কিছুক্ষন সময় দিল। তারপর আবার শুরু হল পথ চলা। প্রায় মিনিট দশেক চলার পর রাস্তার বাঁ পাশে এল একটি পেট্রোল পাম্প। তাকে ডান দিকে রেখে আমাদের বাস বাম দিকে একটি গলি পথে ঢুকে গেল, মূল রাস্তাকে ছেড়ে দিয়ে। গ্রামের মধ্যে ইঁট পাতা একফালি রাস্তা দিয়ে তীব্র গতিতে আমাদের বাস এগোতে লাগল। মনে হচ্ছিল যেন বাড়ির উঠান গুলির উপর দিয়েই যেন বাসটি ছুটে চলেছে। মিনিট পাঁচেক চলের পর অবশেষে আমারা এসে পরলাম হাতানিয়া-দোয়ানিয়া নদীর পাড়ে।
    এই নদী পেড়িয়েই আমাদের বকখালি যেতে হবে। এখানে আসার পর বুঝতে পারলাম গ্রামের রাস্তায় বাসটি কেন এত জোরে ছুটছিল। আসলে এই ছোট্ট নদীটি পেরোনোর জন্য কোন ব্রীজ নেই। এখানে নদী পেরোনোর এক মাত্র মাধ্যম হল একটি বিশালাকার ভেসেল। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয় এই ভেসেলটি। এর মধ্যমে একসাথে প্রায় ১০-১২ টি বড় গাড়ি পারাপার করতে পারে যাত্রী সমেত। আমাদের বাস সামান্য দেরি করে ফেলায় ভেসেলটি ছেড়ে অপর প্রান্তে চলে গেছিল। পুনরায় ভেসেলটি আসতে প্রায় মিনিট ২০ অপেক্ষা করতে হবে। এই সুযোগে বাস থেকে নেবে চারিদিকে দেখার সুযোগ পেলাম। তবে আমার স্ত্রী ও আমার বন্ধুর স্ত্রী গাড়ির যাত্রার ধকলে খানিকটা কাহিল হয়ে বাসেই বসে রইল। গাড়ি থেকে নামতেই যে জিনিষটা চোখে পড়ল তা হল সুন্দরবন ভ্রমনের বিভিন্ন সাইনবোর্ড। নদীর ঘাটের পাশে চলছে নারায়নপুর অবৈতনিক বিদ্যালয়। এছাড়া রয়েছে একটি বরফ তৈরির কারখানা। আরেকটু সামনে অর্থাৎ নদীর দিকে এগিয়ে যেতেই আমার চোখে এক বিষ্ময় দেখা দিল। ঘাটের দু দিকে যতদূর চোখ যায় শুধুই মাছ ধরার ট্রলারের সারি। কেউ সেখানে স্নান করছে, কেউ রান্না করছে আবার কোনোটাতে চলছে বরফ বোঝায়ের কাজ। অর্থাৎ তারা প্রস্তুতি নিচ্ছে দীর্ঘ সমুদ্র যাত্রার। তাদের পেশার কারনেই তারা পাড়ি দেবে অতল সমুদ্রের গভীরে,চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে তাদের সন্তান-পরিজন দের এক অজানা আশঙ্কার মধ্যে নিক্ষেপ করে। নদীর ঘোলা জলের স্রোতের দিকে তাকিয়ে তন্ময় হয়ে ভাবছিলাম কথাগুলি। হঠাৎ সম্বিত ফিরে পেলাম বাসের হর্নের আওয়াজে। ইতিমধ্যে ভেসেলটি এপারের ঘাটে এসে লেগেছে। আমি বাসে গিয়ে উঠলাম এবং আমাদের বাসটি ধাতব আওয়াজ তুলে ভেসেলের উপর উঠে আসল। মিনিট পাঁচেকের মধ্যে ভেসেল অপর প্রান্ত এসে পৌছাল। নদীর এই পাড়টি বেশ কয়েকটি দোকান, একটি বাজার ও একটি উচ্চ বিদ্যালয়ের সমন্বয়ে বেশ জমজমাট একটি অঞ্চল। ফেরিঘাট থেকে বেড়িয়ে একটু এগোলেই ১১৭ নং রাজ্য সড়ক, যেটি সরাসরি বকখালি চলে গেছে। এছাড়া এখানে রয়েছে একটি বাসস্ট্যান্ড। নামখানা থেকে বকখালি লোকাল বাস সার্ভিস এখান থেকে পাওয়া যায়। আধ ঘন্টা পরপর এখান থেকে বাস সার্ভিস পাওয়া যায়।
    আমাদের বাস কালো পিচের রাস্তা ধরে তীব্র গতিতে এগিয়ে চলতে লাগল। চলবার পথে বেশ কয়েকটি জমজমাট বাজার ও জনপদ আমাদের নজরে পড়ল। ফেরি পেরিয়ে বাস পাকা রাস্তায় পরার পর বাঁদিকে মদনগঞ্জকে বাঁদিকে এগিয়ে যেতে লাগল। একটি ছোট ব্রীজ পরোনোর পর বাস গিয়ে পৌঁছল চন্দ্রনগর বাজার। মানষের কোলাহলে মুখরিত। এখানে বাস বেশিক্ষন দাঁড়াল না। দুজন যাত্রী নামতেই বাস ছেড়ে দিল। ঘন কালো মসৃন রাস্তা সবুজ ধানের ক্ষেতকে বিদীর্ণ করে সোজা এগিয়ে চলেছে। রাস্তার দুধারে ধানের ক্ষেতে সবে পাক ধরেছে। হালকা সবুজ হালকা সোনালি আভা যেন দিগন্তের ওপারে আকাশের সাথে মিশে গেছে। আমরা এগিয়ে চললাম। বাস ক্রমশঃ রাজনগর বিশ্বম্বর হাই স্কুল, ৭ মাইল বাজার, নারায়নী শিক্ষাসদন হাই স্কুল পেরিয়ে এগিয়ে চকতে লাগল। নারায়নী শিক্ষাসদন হাই স্কুল পেরোনর পরই দেখলাম একটি রাস্তা বাঁ দিকে ঢুকে গেছে। এবং পথ নির্দেশ দেওয়া আছে হনরি আইল্যান্ড। বাস আর কোথাও না থেমে সোজা গিয়ে দাঁড়াল বকখালি বাসস্ট্যান্ডে। প্রায় সাড়ে চার ঘন্টার জার্নি শেষে আমরা বকখালি এসে পৌঁছালাম।
    অন্যান্য জায়গার মত এখানে হোটেল বুকিং এর জন্য দালাল দের হামলা চোখে পড়ল না। বাসস্ট্যান্ডের কাছেই হোটেল মেঘালয়ের দুটি ঘর আমরা বুক করলাম। বেশ বড় ও পরিচ্ছন্ন দুটি ঘর সাথে ঝকঝকে পরিস্কার বাথরুম। হোটেলে ঢুকে দীর্ঘ বাস যাত্রার ক্লান্তি দূর হল কিছুক্ষনের বিশ্রামে। আমরা স্নান করে বেরোলাম দুপুরের খাবার খেতে। বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন অঞ্চলে প্রায় ২০-২৫ টি খাবারের রেস্টুরেন্ট রয়েছে। তবে দু একটি ছাড়া বেশীর ভাগই নোংরা প্রকৃতির। আমরা ঢুকলাম হোটেল পারিজাত-এ।এটি বেশ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন। খাবারের দামও বেশ কম। ঘরোয়া টাইপের রান্না বেশ সুস্বাদু। খাওয়া দাওয়া সেরে আমরা ফিরলাম হোটেলে। আমাদের হোটেলের চারিদিকে কয়েকটি বড় বড় হিটেল রয়েছে। রয়েছে সবুজের আভাও। খেজুর, নারকেল, আম গাছে বেষ্টিত আমাদের হোটেলটি। আমাদের হোটেল মালিক শ্রী অনিল কুমার প্রামানিক (৯৮৩০৪৫০৩১৭) খুবই ভদ্র ও মিশুকে। ওনার সাথে কথা বলতে বলতে বিকাল হয়ে গেল। আমরা যে যার ঘরে আসলাম সান্ধ্য ভ্রমনে বেড়োনোর উদ্দ্যেশে।
    বিকাল গড়িয়ে সন্ধ্যা নামতেই আমরা বেড়োলাম। বাসস্ট্যান্ড ও বনবিভাগের দপ্তরকে বাম দিকে রেখে আমরা এগিয়ে চললাম সামনের দিকে। খানিক এগোনোর পর বাঁ হাতে পড়ল বকখালি টুরিষ্ট লজ। এখান থেকে মিনিট দুই হাটলেই বিস্তৃত বেলাভূমি। বেলাভূমির শুরুতেই কয়েকটি দোকান। বাঁশের বেড়া ও হোগলা পাতা দিয়ে তৈরি দোকান গুলিতে চা-বিস্কুট, চিপস্ ইত্যাদি পাওয়া যাচ্ছে। দোকান গুলি পেরোলেই একটি মন্দির। মন্দিরকে কেন্দ্র করে ২০-২৫ টা দোকান। যখানে সামুদ্রিক জিনিষের বিভিন্ন দ্রবাদি পাওয়া যাচ্ছে। এই দোকান গুলিকে রেখে সামনে এগোলে মূল বেলাভূমি। স্থানিয় লোকেরা ঠেলা গাড়িতে করে নিয়ে এসে বিভিন্ন জিনিষের দোকান খুলেছে। কেউ মাছ ভাজা, কেউ ফুচকা আবার কেউ চটরমটর বা আইসক্রিম বিক্রি করছে। কিছু লোক সাগর তীরে চেয়ার পেতে রেখেছে। ঘন্টা প্রতি ০৫ টাকা করে। চেয়ারে বসে সমুদ্রের মনোরম শোভা উপভোগ করা যায়। ঘন্টা দুয়েক বসার পর আমরা উঠে পড়লাম ফিরে আসার জন্য। ফরার পথে পরের দিনের ঘোরার প্ল্যান করে ফেললাম এবং একজন ভ্যানওয়ালাকে ঠিক করে রাখলাম পরের দিন ঘুরতে নিয়ে যাবার জন্য। ফেরার পথে রাতের খাবার খেয়ে একেবারে ঘরে ফিরে আসলাম।
    পরের দিন সকালে তাড়াতাড়ি উঠলাম সূর্য ওঠা দেখব বলে। ভোর ০৫ টায় উঠে চলে গেলাম সমুদ্রের পারে। সকালের মনোরম বাতাষ এবং তাতে সদ্য আসা শীতের ছোয়া অসাধারণ অনুভূতির সৃষ্টি করে। অত সকালেও সমুদ্রের পাড়ে বেশ কিছু লোক দেখলাম। তারপর যে দৃশ্য দেখলাম তা অনেক দিন ভুলতে পারব না। যেন মনে হল সমুদ্রের মধ্যে থেকে আগুনে ঝলসানো এক বিশালাকার থালা উঠে আসল। সমুদ্রের পাড় ও আকাশ যেন আগুনে বর্ণ ধারন করল। এরপর আমরা গেলাম বনবিবির মন্দির দর্শণ করতে। সমুদ্রের পাড় ধরে বাঁদিকে এগোলে খানিক যাওয়ার পর বনের মধ্যে এই মন্দির অবস্থিত। গাছের ছায়ায়, নিঃস্তব্ধ পরিবেশে অবস্থিত এই মন্দির এক মায়াময় পরিবেশ তৈরী করেছে। যে সমস্ত মানুষ বনে কাঠ সংগ্রহ করতে, মধু আনতে অথবা মাছ ধরতে যায় তারা প্রথমে বনবিবির পূজা দিয়ে তবে বনে যান। মন্দির পরিদর্শন করে আমরা ফিরে এলাম হোটেলে। ইতিমধ্যে আমাদের ভ্যানওয়ালা আমাদের হোটেলের সামনে এসে আমাদের অপেক্ষা করছেন। সকালের খাওয়া সেরে আমরা ০৯ টা নাগাদ বেরোলাম আশেপাশের বিভিন্ন জায়গা দেখতে। প্রথমেই আমরা চললাম হেনরি আইল্যান্ড। গ্রামের মধ্যে দিয়ে প্রায় মিনিট ২৫ চলার পর আমরা পৌছালাম হেনরি আইল্যান্ড। ঢোকার মুখে প্রত্যেকের জন্য ০৫ টাকা করে টিকিট নিল। হেনরি আইল্যান্ডে দেখার মধ্যে একটি ওয়াচ টাওয়ার ও বিস্তৃত সমুদ্রের পার। ওয়াচ টাওয়ারটি প্রায় তিন তলা বাড়ির সমান উঁচু। এর উপরটা চারিদিকে গ্রিল দেওয়া এবং ফাঁকা । ষেখান থকে চারিদিকের দৃশ্য খুব সুন্দর ভাবে দেখা যায়। দিগন্ত বিস্তৃত সবুজের রাশি মাথা তুলে দাড়িয়ে আছে। এখানে এসে জানতে পারলাম যে এখানে থাকার জন্য মৎস্য দপ্তরের দুটি কটেজ আছে। যে গুলি বুকিং করতে হয় কলকাতা থেকে। এখান থেকে আমরা এগিয়ে গেলাম আরও সামনে। আমাদের সামনে উদয় হল বিস্তৃত সমুদ্র তট। কিছুটা সময় এখানে কাটিয়ে আমরা ফিরে চললাম। যাওয়ার পথে আমাদের পরিচয় হল সুন্দরী, গরাণ ও অন্যান্য ম্যানগ্রোভ গাছের সাথে। আর পরিচয় হল লাল কাঁকড়ার সাথে।
    এখান থকে বেড়িয়ে আমরা চললাম মৎস্য বন্দরের উদ্দ্যেশে। প্রায় মিনিট ২৫ চলার পর আমরা পৌছালাম মৎস্য বন্দরে। গিয়ে দেখলাম কয়েক শত মাছুয়ারের কর্মকান্ড। শত শত ট্রলার এসে বন্দরে দাঁড়য়ে আছে, কেউ বা সদ্য এসে পৌছেছে আবার কেউ ছাড়ার অপেক্ষায় দাড়িয়ে আছে। ইলিশ, পমফ্রেট, লোটে, চিংড়ি ইত্যাদি নানা কিসমের মাছ দখলাম আমরা। হাজার হাজার টন বরফ লোড হচ্ছে ট্রলার গুলিতে। ক্যারেট ক্যারেট মাছ চলে যাচ্ছে লরিতে করে কাছে ও দূরের বাজার গুলিতে বিক্রয় করার জন্য। এখানে প্রায় ঘন্টা খানেক কাটানোর পর আমরা আসলাম ফ্রেজারগঞ্জ। কিন্তু ফ্রেজারগঞ্জের প্রকৃতি তমন ভালো লাগল না। শুনলাম আইলার সময় এখান কার সমস্ত কিছু ভেঙেচুরে গিয়েছিল। এবং এখন আর কিছুই আগের মত নেই। ওখানে কিছুক্ষন লাটানোর পর আমরা ফিরে আসলাম হোটেলে। মোটামুটি ঘন্টা পাঁচেকের মধ্যে আমাদের ঘোরা সম্পূর্ণ হল। বিকালের দকে আবার গেলাম সমুদ্রের ধারে। এদিক ওদিক ঘুরে কেটে গেল সময়টা।
    পরের দিন আমাদের বাড়ি আসার দিন। আমরা ঠিক করলাম ট্রেনে করে ফিরব। সেই মত আমরা পরের দিন সকালে হোটেল ছেড়ে নামখানা পৌঁছালাম। নদী ঘাট পেরিয়ে একটা ভ্যান ধরে আমরা এসে পৌঁছলাম নামখানা স্টেশনে। সেখান থেকে শিয়ালদহ। শিয়ালদহ থেকে বাড়ি। সমাপ্ত হল আমাদের বকখালি ভ্রমন।
    ………………………………………………………….।

    ১) কলকাতা (ধর্মতলা) থেকে বকখালি ডাইরেক্ট বাস সকাল ৭ টা এবং ৮ টায় ছাড়ে। এবং বকখালি থেকে কলকাতা আসার বাস ছাড়ে দুপুর ১ টা ৩০ মিনিটে। অগ্রিম বুকিং এর ব্যবস্থা আছে।
    ২) শিয়ালদহ থকে ট্রেনে নামখানা গিয়ে নদী ঘাট পেরিয়ে বাসে করে বকখালি যাওয়া যায়।

    ভাড়া —

    ধর্মতলা থেকে বকখালি ডাইরেক্ট বাস – ৮০ টাকা।
    কলকাতা থকে নামখানা ট্রেন – ২৫ টাকা।
    নামখানা স্টেশন থেকে নদী ঘাট – ০৫ টাকা।
    নদী ঘাট পেরোতে – জন প্রতি ১ টাকা ৫০ পয়সা
    নামখান থেকে বকখালি বাস – ১৩ টাকা।
    সাইট সিন করার জন্য ভ্যান ভাড়া – ৬০ টাকা প্রতি জন। লোক বেশি হলে ভাড়া কমে যায়।
    হোটেল মেঘালয় – ৩০০ টাকা প্রতি রাত। খুব ভালো ব্যবস্থাপনা। (৯৮৩০৪৫০৩১৭)। প্রাইভেট হোটেল সমুদ্র থেকে সবচেয়ে কাছে।

  16. Debaprasad
    March 5, 2014 at 3:41 PM | #26

    Really great u r Rangan! I came to know a lot about Bakkhali and Henry’s Island from ur blog and decided to visit both the places with family. I am starting for Bakkhali on 22nd Mar., but booked no lodging. Can u suggest me a good hotel nearer to seabeach and tell me whether I can get booking on spot. However i’m glad to let u know that as per ur earlier suggestions (to others as found in ur blog), I have booked 2 rooms in the 1st floor of Sundari Resort on 23rd Mar….. Waiting eagerly for ur reply.

  17. Debaprasad
    March 5, 2014 at 3:51 PM | #27

    Sorry, I mean to say, Sundari Resort Complex in Henry’s Island of the State Fisreries Deptt., Govt. of W.B.

  1. No trackbacks yet.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.

Join 1,058 other followers

%d bloggers like this: